বড় বিপদে বাংলাদেশ ক্রিকেট!

ত্রিদেশীয় সিরিজে ফেভারিট দল হয়েই শুরু করেছিলো বাংলাদেশ। মূলত দুটো চ্যালেঞ্জ নিয়ে মাঠে নেমেছিল তাঁরা। প্রধান কোচ ছাড়া কতটা পরিপক্ক দলটা ও ঘরের মাঠের চ্যালেঞ্জ। ত্রিদেশীয় সিরিজের নিজেদের প্রথম তিন ম্যাচে সবগুলো উতরালেও হুট করেই যেন এলোমেলো হয়ে যায় সব।

ফাইনালের আগে লিগ পদ্ধতির শেষ ম্যাচে লঙ্কানদের কাছে বাজেভাবে হারে বাংলাদেশ। ফাইনাল ম্যাচেও বড় ব্যবধানে হারে স্বাগতিকরা। প্রথম টেস্ট ‘ড্র’ করলেও দ্বিতীয় টেস্ট বড় ব্যবধানে হারে বাংলাদেশ। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে হারার ধারা বজায় রেখেছিলো টি-টোয়েন্টি সিরিজেও। প্রথম ম্যাচে দলীয় সর্বোচ্চ রান করেও হার বাংলাদেশের।

দ্বিতীয় ম্যাচে বোলারদের এলোমেলো বোলিংয়ে পাহাড়সম টার্গেট দেয় শ্রীলঙ্কা। আর সেই টার্গেট তাড়া করতে নেমে শুরুতেই উইকেট হারিয়ে বিপদে পড়ে বাংলাদেশ। ফলস্বরূপ দ্বিতীয় ম্যাচেও ৭৫ রানের বড় ব্যবধানে হারতে হয় বাংলাদেশ। কোচ ছাড়া যে দলটি এলোমেলো সেটি যেন বোঝাই যায়।

কোচ বিহীন দল প্রতি ম্যাচেই কোন না কোন ভুল করছে ক্রিকেটাররা। আর সেটির মাশুল দিতে হচ্ছে মাঠে। অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহর মতে এই ভুলগুলো থেকে অতি দ্রুতই বের হতে হবে দলকে।

“আমরা যে ভুলগুলো প্রতিনিয়ত করছি, আমার মনে হয় সেটির মাশুল প্রতি ম্যাচেই আমাদের দিতে হয়েছে। এইখান থেকে আমাদের বের হতে হবে। এছাড়া মনে হয়না আমাদের কোন রাস্তা আছে।”

আগের ম্যাচেই চার ক্রিকেটারকে অভিষেক করিয়েছে টিম ম্যানেজমেন্ট। দ্বিতীয় ম্যাচে নতুন দুই ক্রিকেটার সেই সাথে একাদশে একাধিক পরিবর্তন। টি-টোয়েন্টিতে এখনো পর্যন্ত যেন সঠিক কম্বিনিশনই খুঁজে পায়নি বাংলাদেশ। আর শীঘ্রই সেটি খুঁজে না পেলে, মাহমুদউল্লাহর মতে সামনে বড় বিপদে পড়তে হতে পারে দলকে।

“টি-টোয়েন্টিতে সঠিক কম্বিনিশনের খোঁজে এখনো আমরা আছি। আশা করছি শীঘ্রই এই ব্যাপার গুলো আমাদের খুঁজে বের করতে হবে। অন্যথায় আমরা হয়তো অনেক বড় বিপদে পড়ে যাবো বিশেষ করে টি-টোয়েন্টিতে।”

২০১৭ সালের মার্চের পর থেকে মাত্র একটি টি-টোয়েন্টিতে জয় পেয়েছে বাংলাদেশ। ওয়ানডে ও টেস্টে সঠিক কম্বিনিশন খুঁজে পেলেও ক্রিকেটের এই ছোট সংস্করণে এখনো কাঁচা টাইগাররা। আগামী মার্চেই নিদাহাস ট্রফি খেলতে লঙ্কা সফর করবে বাংলাদেশ। তার আগে সঠিক কম্বিনিশন না খুঁজে পেলেও হয়তো এই রিয়াদের শঙ্কাটাই সত্যি হয়ে যাবে।

Related posts